ন্যাভিগেশন মেনু

নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবস্থা আধুনিক ও উন্নত হবে: জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী


ইউরোপীয় দেশগুলোর সহযোগিতা ও অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে পারলে নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবস্থা আধুনিক ও উন্নত হবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

বুধবার (২৩ জুন) নিজ সরকারি বাসভবন থেকে নবায়নযোগ্য জ্বালানি বিষয়ক টিম ইউরোপের উদ্যোগে আয়োজিত টিম ইউরোপ ইনিশিয়েটিভের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।

এসময় জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘পরিবেশ সুরক্ষার কথা চিন্তা করে বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর মতো বাংলাদেশও কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ থেকে সরে এসেছে। জোর দেওয়া হচ্ছে নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে। নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে তিন শতাংশ বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যোগ হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘পাওয়ার সিস্টেম মাস্টার প্ল্যান পর্যালোচনায় নবায়নযোগ্য জ্বালানির অংশ পর্যায়ক্রমে বাড়ছে। ২০৪১ সালে নবায়নযোগ্য জ্বালানির অংশ ৪০ শতাংশ হবে। ৫৮ লাখ সোলার হোম সিস্টেমের মাধ্যমে প্রায় দুই কোটি গ্রামীণ জনগণকে বিদ্যুৎ সেবা দেওয়া হচ্ছে। নেট মিটারিং সিস্টেমের মাধ্যমে রুফটপ সোলার জনপ্রিয় বিজনেস মডেল হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশে জমি স্বল্পতার কারণে সৌরবিদ্যুতের বড় প্রকল্প নেয়া যাচ্ছে না। তাই সৌরবিদ্যুতে কম জমি লাগে এমন প্রযুক্তি উদ্ভাবন প্রয়োজন।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘টিম ইউরোপ ইনিশিয়েটিভের সঙ্গে বায়ুবিদ্যুৎ, বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ, ওশান নবায়নযোগ্য জ্বালানি নিয়ে অনুসন্ধান ও কাজ করার প্রচুর সুযোগ রয়েছে। অনুসন্ধানে বিপুল বিনিয়োগ প্রয়োজন। ইউরোপের অভিজ্ঞতা এসব বিষয় উন্নয়নে আশানুরূপ অবদান রাখবে। মানব সম্পদ ও প্রযুক্তি হস্তান্তরে একত্রে কাজ করতে পারলে উভয়পক্ষই উপকৃত হবে।’

এমআইআর/ওআ