ন্যাভিগেশন মেনু

সু চির বিরুদ্ধে আরও একটি দুর্নীতির মামলা


গত ১ ফেব্রুয়ারি মায়ানমারের সেনাবাহিনী রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল করে নেয়। তারপর থেকেই গৃহবন্দি ক্ষমতাচ্যুত নেতা আং সান সু চি। তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ রয়েছে। এবার নতুন করে সু চির বিরুদ্ধে আরও একটি দুর্নীতির মামলা করেছে দেশটির সামরিক জান্তা সরকার।

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) রয়টার্সের একটি প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, রাজধানী নে-পি-দোর একটি পুলিশ স্টেশনে বুধবার (৯ জুন) এসব মামলা দায়ের করা হয়।

দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত দৈনিক গ্লোবাল নিউ লাইট অব মিয়ানমারের বরাত দিয়ে বলা হয়, তার সরকারের আরও কয়েকজন সাবেক কর্মকর্তার বিরুদ্ধেও একই অভিযোগ আনা হয়েছে।

দেশটির দুর্নীতি দমন কমিশন বলছে, দাতব্য সংস্থা ‘দাউ কিন চে ফাউন্ডেশনে’র জমি অপব্যবহার করেছেন সু চি ও তার দলের লোকেরা। এই অভিযোগের পাশাপাশি অবৈধভাবে অর্থ ও স্বর্ণ গ্রহণের অভিযোগ আছে সু চির বিরুদ্ধে।

ওই সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, সু চি তার ক্ষমতার ব্যবহার করে দুর্নীতির অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। তাই তাকে দুর্নীতি দমন আইনের ৫৫ ধারায় অভিযুক্ত করা হয়। অপরাধ প্রমাণ হলে তার ১৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।

এর আগে বেআইনিভাবে ওয়াকিটকি রাখার অভিযোগে ঔপনিবেশিক আমলের ‘অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট’ লঙ্ঘনের দায়ে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়। তার সমর্থকরা বলছেন এই মামলা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

এছাড়া সু চির বিরুদ্ধে দুটি আদালতে আরও কয়েকটি মামলা করা হয়েছে, যেগুলোর বেশিরভাগই ছোটখাট অভিযোগে।

ওয়াই এ/ওআ