ন্যাভিগেশন মেনু

রাজধানী ঢাকায় ১১ মাসে ৩০ বস্তিতে আগুন


রাজধানী ঢাকায় ১১ মাসে ৩০ বস্তিতে আগুন নিয়ে নানামহলের নানা অভিমত। একজন ভুক্তভোগী বলেন, বস্তিতে যখন আগুন লাগে, তখন পরনের কাপড় ছাড়া ঘর থেকে কিছু নিয়ে বেরোতে পারেনা।

রাজধানী ঢাকার মহাখালীর সাততলা বস্তিতে আগুন লাগে গত সোমবার রাত ১২টার দিকে। 

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের হিসাবে ওটা ছিল ঢাকার বস্তিতে এ বছরের আগুনের ২৮তম কাণ্ড। এরপর এ সপ্তাহেই ঘটেছে আরও দুটি। সব মিলিয়ে শুক্রবার পর্যন্ত বছরের প্রথম ১১ মাসে বস্তিতে অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে ৩০টি। 

অবশ্য সব ঘটনা যে ভয়াবহ ছিল তা–ও নয়, কোনো কোনোটিতে ক্ষয়ক্ষতি তেমন হয়নি। তবে প্রশ্ন হলো, এক সপ্তাহের ব্যবধানে তিনটি বস্তিতে কী করে আগুন লাগল তা নিয়ে। 

গত সোমবার রাতে সাততলা বস্তিতে আগুন লাগার ১৬ ঘণ্টার ব্যবধানে মঙ্গলবার বিকেলে আগুন লাগে মোহাম্মদপুরের জহুরি মহল্লায়। জহুরি মহল্লার আগুন নিভতে না নিভতেই ওই দিন রাত আড়াইটার দিকে আগুন লাগে মিরপুরের বাউনিয়াবাদ এলাকার বস্তিতে। পুড়ে যায় শতাধিক ঘরবাড়ি ও দোকানপাট।

বস্তিবাসীদের অনেকেই মনে করেন, বস্তিতে পরিকল্পিতভাবে আগুন লাগানো হয়। মোহাম্মদপুরের জহুরি মহল্লার ক্ষতিগ্রস্ত বাসিন্দাদের জনা দশেকের সঙ্গে কথা হয় ।

আবদুল খালেক নামের একজন বলেন, ১৯৯১ সালে সরকারি জমিতে এ বস্তি ওঠে। এর আগেও এ জায়গা দখলে নেওয়ার চেষ্টা করেছিল সরকার। আদালতের স্থগিতাদেশ থাকায় নিতে পারেনি।

বস্তির বাসিন্দাদের কারও কারও অভিযোগ স্থানীয়রা  প্রায়ই তাদের চলে যেতে বলেন। এর আগেও একবার বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা হয়েছে। বস্তির জমি বেচাকেনার ঘটনাও ঘটেছে। গতকাল ঘটনাস্থলে দেখা গেছে আবাসন প্রতিষ্ঠানের বড় সাইনবোর্ড। 

বস্তিবাসীদের অনেকেই মনে করেন, বস্তিতে পরিকল্পিতভাবে আগুন লাগানো হয়। 

মোহাম্মদপুরের জহুরি মহল্লার ক্ষতিগ্রস্ত বাসিন্দারা জানান, ১৯৯১ সালে সরকারি জমিতে এ বস্তি ওঠে। এর আগেও এ জায়গা দখলে নেওয়ার চেষ্টা হয়েছে।  আদালতের স্থগিতাদেশ থাকায় নিতে পারেনি। বস্তির বাসিন্দাদের কারও কারও অভিযোগ স্থানীয় কাউন্সিলর সলিমুল্লাহর দিকে। 

তাঁরা বলছেন, প্রায়ই তিনি লোক মারফত বস্তি ছেড়ে লোকজনকে চলে যেতে বলেন। এর আগেও একবার বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা হয়েছে। বস্তির জমি বেচাকেনার ঘটনাওিআছে। 

ফায়ার সার্ভিসের হিসাবে গত বছর সারা দেশে ২৪ হাজার ৭৪টি অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে। এর প্রধান কারণ ছিল বৈদ্যুতিক গোলযোগ। কমপক্ষে ৮ হাজার ৬৪৪টি অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে এ থেকে। দ্বিতীয় শীর্ষ কারণ চুলার আগুন। গত বছর ৪ হাজার ৪২৮টি অগ্নিকাণ্ডের পেছনে দায়ী ছিল চুলার আগুন। সিগারেটের আগুন থেকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে ৪ হাজার ১৫৩টি।

এস এস