ন্যাভিগেশন মেনু

মামুনুল বলছেন স্ত্রীর নাম আমিনা, নারী বললেন তার নাম জান্নাত (ভিডিও)


নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে র‌য়্যাল রিসোর্টে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক সঙ্গে থাকা নারীকে দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করে তার নাম আমিনা তাইয়্যেবা বললেও নারী বলেছেন তার নাম জান্নাত আরা জান্নাত। 

এরইমধ্যে এই ঘটনা টক অব দ্য কান্ট্রিতে পরিনত হয়েছে। অনেকেই বলছেন, 'নিজের স্ত্রী হলে তো নাম জানতোই।'

এখানেই শেষ নয়, হেফাজত নেতা মামুনুল হকের কথিত দ্বিতীয় স্ত্রীর নাম কী, সেটির পাশাপাশি তার বাড়ি কোথায় সেটি নিয়েও তৈরি হয়েছে প্রশ্ন। রিসোর্টে স্থানীয়দের হাতে অবরুদ্ধ হওয়ার পর হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব ওই নারীটির পরিচয়, তার বাড়ি কোথায় সে নিয়ে যে তথ্য দিয়েছেন, তার সঙ্গে ওই নারীর দেওয়া তথ্যে কোনো মিল নেই।

মামুনুল দাবি করেছেন, তার শ্বশুরবাড়ি খুলনায়। শ্বশুরের নাম জাহিদুল ইসলাম। তবে তার কথিত স্ত্রী দাবি করেছেন, তার বাবার নাম অলিয়র রহমান, বাড়ি ফদিরপুরের আলফাডাঙ্গায়। অবশ্য আগের মুহূর্তে তিনি বাড়ি একই জেলার ভাঙ্গা উপজেলা বলে জানিয়েছিলেন।

তাছাড়া, মামুনুল হকের এক মোবাইল কথোপকথনে শোনা যায়, তিনি এক নারীর সঙ্গে বলছেন, 'পুরা বিষয়টা আমি তোমাকে সামনে আইসা বলব।…এই মহিলা যে ছিল সাথে সে আমাদের শহিদুল ইসলাম ভাইয়ের ওয়াইফ। বুঝছ?'

এরমধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায় জান্নাত আরা জান্নাতের একটি ভিডিও। ভিডিওর কথোপকথন নিম্নরূপ:


আপনার নাম যেন কী বললেন?

জান্নাত আরা (অস্পষ্ট)।

আপনার বাবার নাম?

অলিয়র রহমান।

বাড়ি কোথায়?

ফরিদপুর।

ভাঙা থানায়?

-জ্বি না, আলফাডাঙ্গা থানায়।

তখন যে বললেন ভাঙা থানায়?

ভুল বলেছিলাম।

আপনি মামুনুল হক সাহেবের সেকেন্ড ওয়াইফ, না?

জ্বি।

আপনাদের কোনো বেবি নেই?

না।

ওনার প্রথম ঘরের স্ত্রীর কয় সন্তান?

চার ছেলে।

মেয়ে নেই?

না।

এখানে কখন আসছেন?

লাঞ্চ আওয়ারের পরে।

এর আগে কোথায় ছিলেন?

বাসায়।

বাসা কোথায়? কোন বাসায়? ঢাকায়?

জ্বি।

ঢাকা বাসা কোথায়?

মোহাম্মদপুর।

মোহাম্মদপুর কোথায়?

মোহাম্মদপুরের এখানেই বাসা।

এখানে কি বেড়াতে আসছিলেন নাকি থাকতে আসছিলেন?

বেড়াতে আসছিলাম।

কোথায়, মিউজিয়ামে?

এখানেই আসছিলাম। রেস্ট করতে।

বাসায় রেস্ট করার জায়গা নেই?

অবশ্যই আছে। বাসায় কি সবাই সব সময় রেস্ট করে? বাইরে কেন আসে। দেশের বাইরেও তো যায়। যায় না।

হ্যাঁ, যায়, সেটা তো প্রাকৃতিক পরিবেশ দেখার জন্য, ঘোরার জন্য।

এখানে প্রাকৃতিক পরিবেশ আমরা দেখতে দেখতে একটু লাঞ্চ করে একটু রেস্ট করে চলে যাব।

হঠাৎ করে এখানে শোরগোল কেন হলো, সবাই কী করে জানতে পারল বা জানল?

আমি এ বিষয়ে কিছু জানি না।

আপনি বাথরুমেই কী কারণে এলেন? আপনার তো হাসব্যান্ড।

অ্যাকচুয়ালি আমার হাসব্যান্ড ঠিক আছে, কিন্তু আমার হাসব্যান্ড তো আর দশটা হাসব্যান্ডের মতো না। আমি সবার সামনে যেতে পারি না তাই।

মামুনুল হক বললেন...

প্রশ্ন: আপনার কী হয়?

মামুনুল: আমার ওয়াইফ। আমি তাকে বিয়ে করেছি। শরিয়তসম্মতভাবে বিয়ে করেছি।

প্রশ্ন: কবে বিয়ে করছেন? বিয়ে করলে রয়েল রিসোর্টে কেন আসবেন সময় কাটাতে?

মামুনুল: বিয়ে করেছি, প্রমাণ আছে, সাক্ষী আছে।

প্রশ্ন: কয় বছর আগে বিয়ে করেছেন?

মামুনুল: দুই বছর আগে।

প্রশ্ন: দুই বছর আগে বিয়ে করলে সময় কাটাতে রিসোর্টে কেন আসছেন?

মামুনুল: আমি বেড়াইতে আসছি।

প্রশ্ন: আপনার ওয়াইফের নাম কী?

মামুনুল: আমিনা তাইয়্যেবা।

প্রশ্ন: তার বাড়ি কই?

মামুনুল: কিছুই বলব না।

এর আগে সোনারগাঁওয়ের র‌য়্যাল রিসোর্টের পাঁচতলার ৫০১ নম্বর কক্ষে এক নারীসহ মামুনুল হককে অবরুদ্ধ করে স্থানীয়রা। পরে তাকে উদ্ধার করে পুলিশ। সেই সঙ্গে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই নারীকে দ্বিতীয় স্ত্রী বলে দাবি করেন মামুনুল হক। 

এডিবি/