ন্যাভিগেশন মেনু

মমতার হয়ে প্রচারে কলকাতায় জয়া বচ্চন

অভিনেতা অমিতাভ বচ্চন পত্নী জয়া বচ্চন কলকাতায় পা রেখেছেন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে ভোট প্রচারে।

বর্তমান রাজনীতিতে ভোটধর্ম, গণতান্ত্রিক অধিকার– এই শব্দগুলোরই ভিড়। কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গে অবিজেপি দলগুলির লড়াই চলছে। এই লড়াইয়ের পুরোভাগে রয়েছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

একুশের বঙ্গভোটে তৃণমূলকে সমর্থন করে কলকাতায় প্রচারে এসে সেই লড়াইয়ের কথাই মনে করিয়ে দিলেন সমাজবাদী পার্টির রাজ্যসভার সাংসদ তথা অমিতাভপত্নী জয়া বচ্চন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই একমাত্র লড়াকু নেত্রী, যিনি একনায়কতন্ত্রের বিরুদ্ধে লড়ে চলেছেন সকলের গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষা করার স্বার্থে।

মমতার প্রতি তার শ্রদ্ধা, ভালবাসার কথা প্রকাশ করলেন।জানালেন, মমতার নেতৃত্বে রাজ্যের আরও উন্নতি হবে, হবেই।

রবিবার সন্ধেবেলায় কলকাতায় পা রেখেছেন জয়া বচ্চন। আগামী চারদিন তিনি এখানে থেকে তৃণমূলের হয়ে প্রচার করবেন। আসলে একুশের বঙ্গভোটে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূলকে রাজনৈতিকভাবে সমর্থন করছে  সমাজবাদী পার্টি। 

মুলায়ম-অখিলেশের এই পার্টির সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দীর্ঘদিনের সুসম্পর্ক। তাই সমাজবাদী পার্টির প্রতিনিধি হয়ে বাংলার ‘ধন্যি মেয়ে’ জয়া বচ্চন এসেছেন কলকাতায়। তৃণমূলের সমর্থনে প্রচার করতে। 

সোমবার টালিগঞ্জ থেকে তিনি রোড শো শুরু করেন। এরপর আরও কয়েকটি কর্মসূচি রয়েছে তার। তৃণমূল ভবনের সাংবাদিক বৈঠক থেকে রাজনৈতিক লড়াইয়ের বার্তা দিলেন জয়া।তিনি বললেন, ”এখানে অভিনয় করতে আসিনি।

তৃণমূলকে সমর্থন করি। তাই দলের তরফে এসেছি। আর এসেছি মমতাজির জন্য। তার মানসিক দৃঢ়তা, জেদ দেখে অনুপ্রাণিত হই। যে কাজ উনি করতে চান, তাতে আমার পূর্ণ সমর্থন আছে, থাকবে।”

এরপরই তিনি বললেন, ”আমার ধর্ম, আমার গণতান্ত্রিক অধিকার কেউ কেড়ে নিতে পারবে না। আর এখানে আমি মানে আমরা সবাই। এখানে একমাত্র মমতাজি এই অধিকার রক্ষার লড়াই লড়ছে।  

ভোটের আগের দিন কলকাতার বেহালায় তুমুল উত্তেজনা ছড়াল। বেহালা পূর্বের  প্রার্থী পায়েল সরকারের প্রচারে বাঁধা দেওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে দু'পক্ষের মধ্যে গোলমাল শুরু হয়। 

পায়েলকে ঘিরে 'খেলা হবে' স্লোগান দিতে থাকেন তৃণমূল কর্মীরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন তৃণমূল প্রার্থী রত্না চট্টোপাধ্যায়। রত্নাকে ঘিরে পালটা বিক্ষোভ দেখান বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। 'জয় শ্রীরাম' ধ্বনিও দেওয়া হয় এলাকায়। 

এডিবি/