ন্যাভিগেশন মেনু

বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নুল হক সিকদারের মৃত্যুতে সংসদে শোক প্রস্তাব

একাদশ সংসদ অধিবেশনের পর থেকে দ্বাদশ অধিবেশনের আগ পর্যন্ত প্রয়াত সংসদ সদস্য, মন্ত্রী, বিশিষ্ট ব্যক্তিদের নামে সংসদে সর্বসম্মতিক্রমে শোক প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) জাতীয় সংসদের দ্বাদশ অধিবেশনের শুরুর দিনে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এই শোক প্রস্তাব উত্থাপন করেন।

অধিবেশনের শুরুতে সংসদে শোক প্রস্তাবে একাদশ জাতীয় সংসদের সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয়।

শোক প্রস্তাবে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে সিকদার গ্রুপ অফ কোম্পানিজ এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নুল হক সিকদারের কথা স্বরণ করে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জয়নুল হক সিকদার তিনি শুধু মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না মুক্তিযোদ্ধার পক্ষে যত রকম সাহায্য সহযোগিতা করার তিনি করেছেন
এবং হাসপাতাল তৈরি করে মানুষকে চিকিৎসা দেওয়া, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলো মানুষকে শিক্ষা ব্যবস্থা করে দেওয়া সহ আরো জনকল্যাণ মূলক কাজ তিনি করে গেছেন এবং চরম দুঃসময়ে আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের পাশে  জয়নুল হক সিকদার সাহেব থাকতেন।  

এসময় প্রধানমন্ত্রী জয়নুল হক সিকদারের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে তারা পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক উপদেষ্টা হোসেন তৌফিক ইমাম, দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক ও প্রকাশক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদ,  ভাষাসৈনিক আলী তাহের মজুমদার, খ্যাতিমান কলামিস্ট, গবেষক, প্রাবন্ধিক, সাংবাদিক ও লেখক সৈয়দ আবুল মকসুদ, প্রজন্ম একাত্তরের সাবেক সভাপতি ও জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক শাহীন রেজা নূরসহ সংসদে শোক প্রস্তাব উপস্থাপন করা হয়।

প্রয়াত সংসদ সদস্যদের মধ্যে সাবেক প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আমান উল্লাহ, সাবেক গণপরিষদ ও সংসদ সদস্য তোয়াবুর রহিম, সাবেক সংসদ সদস্য আবদুল মজিদ মণ্ডল, সাবেক সংসদ সদস্য মুনসুর আহমেদসহ   দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক ও প্রকাশক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদ,  ভাষাসৈনিক আলী তাহের মজুমদার, খ্যাতিমান কলামিস্ট, গবেষক, প্রাবন্ধিক, সাংবাদিক ও লেখক সৈয়দ আবুল মকসুদ, প্রজন্ম একাত্তরের সাবেক সভাপতি ও জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক শাহীন রেজা নূর সংসদে শোক প্রস্তাব উপস্থাপন করা হয়।


ওআ/