ন্যাভিগেশন মেনু

বঙ্গবন্ধু বৈষম্যহীন মানবিক সমাজ বিনির্মাণ করতে চেয়েছিলেন: বশেফমুবিপ্রবি ভিসি


বঙ্গবন্ধু বঞ্চনা-বৈষম্যহীন মানবিক সমাজ বিনির্মাণ করতে চেয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেফমুবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ ।

শুক্রবার (২৬ মার্চ) মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বঙ্গমাতা বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বাঙালি জাতির স্বাধীনতার স্বপ্নের কেন্দ্রীয় বিষয় ছিল দারিদ্র্য থেকে মুক্তি, বঞ্চনা ও বৈষম্যের অবসান, গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ও বাতাবরণের বিকাশ, ধর্ম–বর্ণ-লিঙ্গ ব্যবধান ঘুচিয়ে উদার মানবিক সমাজ বিনির্মাণ। যার ভিত্তি তিনি গড়ে দিয়ে গেছেন। এখন আমাদের সেই জায়গা থেকে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।

উপাচার্য বলেন, বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন তাঁর সোনার বাংলার মানুষ মাথা উঁচু করে বাঁচবে। সোনার বাংলার ভিত তিনি গড়ে দিয়ে গেছেন। এখন তা নির্মাণের কাজ চলছে, অবয়ব ও চেহারা ফুটিয়ে সমাজব্যাপী প্রাণের স্পন্দন ছড়িয়ে দেওয়াই হবে আমাদের কাজ।

তিনি আরও বলেন, স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তীতে এসে আমাদের আশার কথা, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের রূপায়ণ বাস্তব হয়ে উঠেছে, প্রাণেরও সাড়া মিলছে। এখন কাজ হলো জাতির ঐক্য সাধন এবং সেই ৭ মার্চের মতো ঐক্যবদ্ধ জাতিকে কাজের ময়দানে নেমে পড়ার। এজন্য জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধের বিকল্প নেই।

নিজ নিজ জায়গায় সৎ ও নিষ্ঠাবান থেকে কাজ করে দেশকে এগিয়ে নেওয়ার আহ্বান জানান উপাচার্য ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ।

এর আগে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয় বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতার প্রতিকৃতিতে।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সালমা আখতার জাহান।

সমাজকর্ম বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহকারী অধ্যাপক ড. এএইচএম মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সুশান্ত কুমার ভট্টাচার্য, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ড. মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন ও রেজিস্ট্রার খন্দকার হামিদুর রহমান।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) কাজী শরীফ উদ্দিন, সিএসই বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহকারী অধ্যাপক ড. মাহমুদুল আলম, গণিত বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহকারী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ শাহজালাল, ব্যবস্থাপনা বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহকারী অধ্যাপক এসএম ইউসুফ আলী, ফিশারিজ বিভাগের চেয়ারম্যান ড. আব্দুস ছাত্তার প্রমুখ বক্তব্য দেন।

এদিকে বিকেলে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পরিবেশনার মধ্য দিয়ে ৯দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালা শেষ হয়।

এস এ /এডিবি/