ন্যাভিগেশন মেনু

নাইজেরিয়ায় তিন শতাধিক স্কুলছাত্রী অপহৃত


নাইজেরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে একটি স্কুল থেকে তিন শতাধিক স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করেছে অজ্ঞাতপরিচয় বন্দুকধারীরা।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) স্থানীয় সময় রাত ১টার দিকে জামফারা রাজ্যের জাঙ্গেবে শহরের ওই বোর্ডিং স্কুল থেকে মেয়েদের অপহরণ করার পরে বন্দুকধারীরা তাদের একটি জঙ্গলে নিয়ে গিয়েছে বলে ধারণা করছে পুলিশ।

স্কুলের একজন শিক্ষক সংবাদমাধ্যম 'পাঞ্চ'কে জানান, শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত ১টার দিকে এই হামলার ঘটনা ঘটে। একদল বন্দুকধারী পিকআপ ও বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল নিয়ে জাঙ্গেবে শহরের সরকারি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রবেশ করে ছাত্রীদের অপহরণ করে নিয়ে যায়। বন্দুকধারীদের মধ্যে কয়েকজন সরকারি সুরক্ষা বাহিনীর পোশাক পরে ছিল এবং তারা স্কুল ছাত্রীদের জোর করে গাড়িতে চাপিয়ে নিয়ে যায়।

স্কুলটির একজন শিক্ষক বিবিসিকে জানান, এই সময়ে বিদ্যালয়ের ৪২১ জন শিক্ষার্থী ছিলেন। তারমধ্যে কেবল ৫৫ জনের খোঁজ মিলেছে।

জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ বলেছে যে, নাইজেরিয়ায় আবারও ছাত্রীদের গণঅপহরণের ঘটনায় তারা একইসাথে ক্ষুব্ধ ও শোকগ্রস্ত। এই ঘটনাকে তারা পাশবিক এবং শিশু অধিকার লঙ্ঘন বলে আখ্যা দিয়েছে।

নাইজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুহাম্মদু বুহারি এই অপহরণের ঘটনাকে 'অমানবিক এবং সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য' বলে নিন্দা জানিয়েছেন।

এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, 'ডাকাতরা বিপুল পরিমাণ মুক্তিপণের আশায় নিরীহ স্কুল শিক্ষার্থীদের টার্গেট করে আমাদের ব্ল্যাকমেইল করতে চাইছে। তাদের বলতে চাই এই প্রশাসনকে ব্ল্যাকমেইল করে দমিয়ে রাখা যাবে না।'

তিনি আরও বলেন, আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য জিম্মিদের জীবিত অবস্থায়, কোন ক্ষতি হতে না দিয়ে, নিরাপদে উদ্ধার করা। 

প্রেসিডেন্ট বুহারি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, কর্তৃপক্ষ ওই দস্যুদের বিরুদ্ধে বিশাল বাহিনী মোতায়েন করতে পারলেও তারা স্কুলছাত্রীদের মানবঢাল হিসেবে ব্যবহার করতে পারে।

গত সপ্তাহে প্রতিবেশী নাইজার রাজ্যের কাগারা থেকে ২৭ শিক্ষার্থীসহ অন্তত ৪২ জন অপহরণ করে নিয়ে যায় অজ্ঞাত বন্দুকধারীরা। তাদের এখনও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

এর আগে ২০১৪ সালে ইসলামি জঙ্গিগোষ্ঠী বোকো হারাম উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর চিবক থেকে ২৭৬ জন স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করেছিলো।

এডিবি/