NAVIGATION MENU

দুই স্কুলছাত্রীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণের প্রধান হোতা গুলিযুদ্ধে নিহত


চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে ফিল্মি স্টাইলে প্রকাশ্যে বাজার থেকে দুই কিশোরীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ করে ৮ দুর্বৃত্ত। এই ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর মূল হোতা হেলাল উদ্দিন (৩০) পুলিশের সঙ্গে গুলিযুদ্ধে মারা গেছে।

শনিবার (২৩ মে) দিবাগত রাতে উপজেলার ভুজপুর থানার আন্ধারমানিক গলাচিপারটেক এলাকায় এই গুলিযুদ্ধের ঘটনা ঘটে বলে জানান ভুজপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শেখ আব্দুল্লাহ।

হেলাল উদ্দিন উপজেলার পশ্চিম ভুজপুর এলাকার জাফর আলমের ছেলে।

ওসি বলেন, শনিবার সকালে কাজীরহাট বাজার থেকে ফেরার পথে দুই খালাতো বোনকে হেলালের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী অপহরণ করে। কিশোরীদের একজন সপ্তম শ্রেণী একজন অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী। প্রকাশ্যে তাদের মোটরসাইকেলে তুলে ১০ কিলোমিটার দূরে মনসুরের টিলায় নিয়ে যায়। সেখানে আটজন মিলে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত এ দুই স্কুলছাত্রীর উপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। পরে অচেতন অবস্থায় তাদের জঙ্গলে ফেলে চলে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। এই ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

পুলিশ জানায়, আটজনের মধ্যে ছয়জনকে তারা চিনতে পেরেছে। বাকি দু'জন অপরিচিত ছিল। মামলার এজাহারে হেলালকে প্রধান আসামি করে বাকি ছয়জনের নাম উল্লেখ করা হয়। বাকি দুজন অজ্ঞাতনামা হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

ওসি আরও জানান, ঘটনা জানার পর থেকেই তাদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালিয়ে মূলহোতা হেলালসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারপর হেলালকে নিয়ে অন্য আসামি গ্রেপ্তার করতে আন্ধারমানিক এলাকায় অভিযানে গেলে তার সহযোগীরা অতর্কিত গুলি ছুড়তে শুরু করে। আত্নরক্ষার্থে পুলিশও গুলি ছুঁড়ে। এ সময় গোলাগুলির ঘটনায় হেলাল মারা যায়।পরে ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, একটি কিরিচ, চারটি গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। 

হেলালের বিরুদ্ধে ভুজপুর থানায় ডাকাতির মামলাও আছে বলে জানায় পুলিশের এই কর্মকর্তা।

এডিবি/