NAVIGATION MENU

টেলিভিশন কাহিনিচিত্র ‘বুদ্ধিমান গাধা’


স্বভাবে নিতান্তই সরল হলেও দারুণ রগচটা মতি মাঝি। গরীবদের বিনা টাকায় পারাপার করলেও কথা নড়চড় হলেই সে যেই হোক তাকে পারাপার করে না মতি। বাইরের লোকের সঙ্গে যেমন তার বনিবনা নিয়ে সমস্যা তেমনি বাড়িতেও বউ ফুলবানু ও মায়ের মধ্যে ঝগড়া নিয়ে অশান্তিতে থাকে সে। একদিন এমনি এক সময়ে বউ ও মায়ের ঝগড়াকে কেন্দ্র করে বউকে পেটায় সে এবং মাকেও বাড়ি থেকে বের করে দেয়।

সুযোগ কাজে লাগায় আগে থেকেই তার উপর ক্ষিপ্ত গ্রামের চেয়ারম্যান। শালিস বসিয়ে তাকে শাস্তি দেওয়া হয়। দুটি ১০ ইঞ্চির ইট তার পেটে বেধে দেওয়া হয়। তা নিয়ে নিদারুণ কষ্টের শিকার হতে হয় মতিকে।

শুধু তাই নয়, গ্রামের ছোট ছোট ছেলে-মেয়েরা তাকে গাধা বলে ক্ষেপায়। একসময় মা অসুস্থ হয়ে গেলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য খেয়া ঘাটে গিয়ে শোনে তার নৌকাটি চুরি হয়ে গিয়েছে। উপায় না পেয়ে কাদা আর পানির মধ্যে দিয়েই তার মাকে কোলে নিয়ে নদী পার হয় সে।

এমনি একটি গ্রাম্য নির্যাসের গল্প নিয়ে গড়ে উঠেছে টেলিভিশন কাহিনিচিত্র ‘বুদ্ধিমান গাধা’ নামের এই গল্পের পটভুমি। এতে মতির চরিত্রে অভিনয় করেছেন রওনক হাসান। আর তার স্ত্রীর চরিত্রে শানারেই দেবী শানু। মেজবাহ উদ্দীন সুমনের রচনায় নাটকটি পরিচালনা করেছেন এস. এম. কামরুজ্জামান সাগর।

নাটকটি সম্পর্কে রওনক বলেন, চরিত্রকে ভালোবেসে ধারণ করে তা রুপদান করা যায় এমন খুবই কম কাজ আছে। ‘বুদ্ধিমান গাধা’ টেলিভিশন কাহিনিচিত্র আমার একটি উল্লেখ করার মতো কাজ হয়ে রইলো। আমি খুব গর্ববোধ করি এমন একটি চরিত্রে অভিনয় করতে পেরে। সারাক্ষণ ২টি জেনুইন ইট পেটে বেধে  অভিনয় করতে হয়েছে।

এ সম্পর্কে শানু বলেন, গ্রামের যে একটা নিজস্ব নির্যাস আছে তা গল্পের গাঁথুনিতে তুলে এনেছেন সাগর (নির্মাতা) ভাই। এখানে আমার চরিত্রটি একজন গ্রাম্য বধূর যে কিনা সন্তানহীনা। এ নিয়ে শাশুড়ির সঙ্গে প্রায়ই ঝগড়া লেগে থাকে আমার। আবার শাশুড়ীর জন্য মনটা টানে। সবমিলিয়ে দারুণ উপভোগ করেছি আমার চরিত্রটি।

এতে আরও অভিনয় করেছেন- মাহমুদুল ইসলাম মিঠু, হাসি মুন, মহিউদ্দিন লালু, সঞ্জয় নাথ , জাফর ইকবাল প্রমূখ।

চিত্রগ্রহন- নিয়াজ মাহবুব, সম্পাদনা- বনি চৌধুরী, আবহ সংগীত- বিপ্লব বড়–য়া, প্রযোজনা- ইমপ্রেস টেলিফ্লিম।

এমআইআর / এস এস