ন্যাভিগেশন মেনু

জেরুজালেমে ফিলিস্তিন-ইসরায়েল সহিংসতার দ্বিতীয় দিনে আহত ৮০


জেরুজালেমে ইসরায়েলি পুলিশ এবং ফিলিস্তিনিদের মধ্যে দ্বিতীয় দিনের সহিংসতায় অন্তত ৮০ জন ফিলিস্তিনি নাগরিক আহত হয়েছেন।

শনিবার (৮ মে) স্থানীয় সময় রাতে বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুঁড়েছে এবং পুরনো শহরের দামেস্ক গেটের কাছে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। জবাবে পুলিশ কর্মকর্তারা স্টান গ্রেনেড এবং জল কামান ব্যবহার করেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

অন্যদিকে, ফিলিস্তিনি রেড ক্রিসেন্ট জানিয়েছে, সংঘর্ষে অন্তত ৮০ জন ফিলিস্তিনি আহত হয়েছে। এর মধ্যে ১৪ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে, ইসরায়েলি পুলিশ জানায়, এতে তাদের একজন পুলিশ কর্মকর্তা আহত হয়েছেন।

শনিবারের সহিংসতার শুরু হয় জেরুজালেমের দামেস্ক গেটে যখন ইসলাম ধর্মের পবিত্র রাত লাইলাতুল আল-কদর উপলক্ষে হাজার হাজার মুসলমান আল-আকসা মসজিদে নামাজ আদায় করেন। 

এর আগে শনিবার মসজিদ অভিমুখে নামাজীদের নিয়ে যাওয়া অনেক বাস আটকে দেয় ইসরায়েলি পুলিশ। শুক্রবারের সহিংসতার ঘটনায় বেশ কয়েকজন ফিলিস্তিনিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বিবিসি বাংলা এক প্রতিবেদনে জানায়, ইসরায়েলি বসতি স্থাপনের জন্য পূর্ব জেরুজালেমের বাড়িঘর থেকে ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদ করার সম্ভাবনায় সেখানে বেশ কয়েকদিন ধরে যে উত্তেজনা চলছে, তারই ধারাবাহিকতায় দ্বিতীয় দিনের মতো এই সহিংসতার ঘটনা ঘটলো।

এর আগেরদিন শুক্রবার রাতে আল-আকসা মসজিদের কাছে সহিংসতায় দুইশ' জনের বেশি ফিলিস্তিনি এবং ১৭ জন ইসরায়েলি পুলিশ আহত হয়েছে বলে স্বাস্থ্যকর্মী এবং পুলিশ জানিয়েছে।

জেরুজালেমের আল-আকসা মসজিদ মুসলমান ধর্মাবলম্বীদের কাছে ইসলামের অন্যতম প্রধান কেন্দ্র, কিন্তু সেটি ইহুদি ধর্মাবলম্বীদেরও একটি তীর্থস্থান, যাকে টেম্পল মাউন্ট বলা হয়।

ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, সবার প্রার্থনা করার অধিকার রক্ষার পাশাপাশি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করছে তার দেশ।

ফিলিস্তিনি নেতা মাহমুদ আব্বাস এই ঘটনাকে 'পাপীদের আক্রমণ' বলে অভিহিত করেছেন।

এডিবি/