ন্যাভিগেশন মেনু

জামাল খাসোগিকে হত্যা করা হয় সৌদি যুবরাজের নির্দেশে: যুক্তরাষ্ট্র


২০১৮ সালের অক্টোবে সৌদি রাজপরিবারের সমালোচক এবং যুক্তরাষ্ট্র-প্রবাসী সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরে হত্যায় সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের জড়িত বলে এক গোয়েন্দা রিপোর্টে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিবিসি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। 

প্রতিবেদনে বলা হয়, ক্ষমতা নেওয়ার ৩৫ দিন পর গতকাল (বৃহস্পতিবার) মি. বাইডেন প্রথমবারের মত সৌদি বাদশাহ সালমানের সাথে টেলিফোনে কথা বলেন। এই ফোনালাপ এমন সময় হলো যখন হোয়াইট হাউজ এক-দুদিনের মধ্যেই সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যা নিয়ে একটি গোয়েন্দা রিপোর্ট প্রকাশ করতে চলেছে বলে জানা গেছে।

জামাল খাসোগিকে হত্যার প্রায় পরপরই এ হত্যাকাণ্ডের সাথে যুবরাজের সংশ্লিষ্টতা নিয়ে তাদের সন্দেহের কথা জানিয়েছিল মার্কিন গুপ্তচর সংস্থা সিআইএ।

হোয়াইট হাউজ এখন সেই গোপন রিপোর্টের অংশবিশেষ প্রকাশ করতে চলেছে। সরকারি বিভিন্ন সূত্রে নির্ভরযোগ্য বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মিডিয়াগুলো বলছে, রিপোর্টে খাসোগি হত্যাকাণ্ডে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের জড়িত থাকার কথা রয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টর্স বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) তাদের এক রিপোর্টে বলেছে, সিআইএ'র রিপোর্টে এমন কথা রয়েছে যে, সৌদি যুবরাজ নিজে খাসোগি হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা 'অনুমোদন করেছিলেন এবং সম্ভবত হত্যার নির্দেশও তিনি দিয়েছিলেন।'

যদিও সৌদি সরকার সমসময় এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তাদের বক্তব্য, সৌদি নিরাপত্তা বিভাগের একটি অংশ সরকারের অগোচরে নিজেদের সিদ্ধান্তে ওই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

খাসোগি হত্যাকাণ্ডে জড়িত সৌদি নিরাপত্তা বাহিনীর ১৭ সদস্যের ওপর যুক্তরাষ্ট্র অনেক আগেই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা এবং তাদের সম্পদ আটকে রাখাসহ বিভিন্ন ব্যবস্থা নিয়েছে। ম্যাগনিস্তকি অ্যাক্ট নামে এক বিশেষ আইনের আওতায় এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। তবে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদের ওপরও এই নিষেধাজ্ঞা প্রয়োগ করা হবে কিনা তা জানা যায়নি।

এডিবি/