ন্যাভিগেশন মেনু

গণপরিবহন না পেয়ে ভোগান্তিতে অফিসগামী যাত্রীরা, রিকশা-অটোরিকশার দাপট

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ১১ দফা নির্দেশনা দিয়ে সাত দিনের লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। লকডাউনের শুরুর দিনে নিষেধাজ্ঞার কারণে যাত্রীবাহী বাস বন্ধ থাকলেও রাস্তায় দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র।

ব্যক্তিগত গাড়ি, রিকশা, সিএনজি, মোটরসাইকেল সবই চলছে। লকডাউনের মধ্যেও বিশেষ ব্যবস্থায় অফিস-কারখানা, বইমেলা খোলা রাখার সুযোগ থাকায় অনেক মানুষকে কর্মস্থলের উদ্দেশে বাইরে বের হতে হয়েছে। কিন্তু গণপরিবহন না থাকায় তারা পড়েছেন ভোগান্তিতে।

গণপরিবহন বন্ধ থাকার সুযোগে অফিসগামী যাত্রীদের সঙ্গে ভাড়া নিয়ে দাপট দেখাচ্ছে রিকশা, সিএনজি অটোরিকশারা।

সোমবার (৫ এপ্রিল) সকালে অনেক অফিসযাত্রী মানুষকে গণপরিবহনের উদ্দেশে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। অনেকে সিএনজি, ব্যক্তিগত গাড়ি বা রিলগায় চড়ে গন্তব্যস্থলে রওনা হয়েছেন।

যাত্রাবাড়ীতে গণপরিবহন না পেয়ে বিক্ষোভ করেছেন কারখানাশ্রমিকেরা। রায়েরবাগ বাসস্ট্যান্ডে সকাল সাড়ে নয়টার দিকে এই বিক্ষোভ হয়। ১৫ মিনিট পরে শ্রমিকদের সরিয়ে দিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এসময় কারখানাশ্রমিক হাসান বলেন, কারখানা খোলা রয়েছে। আমাদের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পৌঁছাতে বলা হয়েছে। কিন্তু রাস্তায় এসে দেখি যাওয়ার জন্য বাস নেই। যাদের নিজস্ব গাড়ি আছে তারা ঠিকই অফিসে যাচ্ছে। কিন্তু আমরা যেতে পারছি না। এক জায়গায় দুই অবস্থা, এটা হতে পারে না। হয় সবার জন্য গাড়ির ব্যবস্থা করতে হবে না হয় সব কিছু বন্ধ করতে হবে।

যানবাহনের জন্য অপেক্ষায় ছিলেন একটি গার্মেন্টসের কর্মকর্তা জনি। তিনি বলেন, ‘এখান থেকে আমার অফিসে যেতে অন্য সময় রিকশায় ৬০ টাকা নিত। আজ ভাড়া চাচ্ছে ১৫০ টাকা। তাও ২০ মিনিট দাঁড়িয়ে থেকে দুটি রিকশা ফাঁকা পেয়েছি।  মনে হচ্ছে এখন হেঁটেই অফিসে যেতে হবে।’

সিএনজি  অটোরিকশায় চেপে অফিসের পথে যাত্রা করা সালমা বলেন, ‘মতিঝিলে অফিস। লকডাউন দিলেও অফিস খোলা রয়েছে। সুতরাং অফিসে যেতেই হবে। গাড়ি বন্ধ থাকায় বাড়তি খরচ করে বাধ্য হয়ে অটোরিকশায় যাচ্ছি।’

এদিকে চৌধুরীপাড়া, মালিবাগ, মৌচাক, খিলগাঁও, রাজারবাগ, বাসাবো, কমলাপুর মতিঝিল, ফকিরাপুল, পল্টন, কাকরাই, বাংলামোটর, শাহবাগ এলাকায় দেখা গেছে সড়কে কোনো গণপরিবহন নেই। এসব এলাকার অফিসগামী মানুষ পায়ে হেঁটে গন্তব্যে রওনা দিয়েছেন। দীর্ঘসময় অপেক্ষা করেও রিকশা না পেয়ে হেঁটেই অফিসে যেতে বাধ্য হচ্ছেন তারা।

ওআ/