ন্যাভিগেশন মেনু

কানাডা-যুক্তরাষ্ট্র সীমান্ত খোলা নিয়ে সিদ্ধান্ত ১১ জুন

করোনার মহামারির কারণে বর্তমানে কানাডা-যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্ত বন্ধ রয়েছে। টিকা গ্রহণকারীরা প্রতিবেশী দেশে সহজে ভ্রমণ করতে দুই দেশের সীমান্ত খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে আগামী শুক্রবার (১১ জুন)। 

কানাডার নাগরিক এবং স্থায়ী বাসিন্দারা যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে প্রবেশের অনুমতি পেয়েছেন। গত মাসে কোভিড-১৯ পরীক্ষা এবং স্ক্রিনিংয়ের মাধ্যমে ভ্রমণ শুরু করার জন্য নির্দেশিকা তৈরি করেছিল দেশটির ফেডারেল প্যানেল।

মঙ্গলবার (৮ জুন) অটোয়ায় এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেছেন, যখন ঘোষণা দেওয়ার কথা হয়েছে, তখন আপনি নিশ্চিত হতে পারেন যে আমরা সেগুলো করবো।

তবে তিনি পরিষ্কার করে বলে দিয়েছেন, যারা পুরোপুরি ভ্যাকসিন পেয়েছেন তারা সর্বপ্রথম ভ্রমণের সুবিধা পাবেন।

জনগণ যাতে তাদের ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ গ্রহণ করে, সেজন্য উৎসাহ দিতে টিকার ডোজ সম্পন্নকারী কানাডিয়ানদের প্রতি নিষেধাজ্ঞাগুলো সহজ করা হবে।

অন্যদিকে অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণকে সীমাবদ্ধ করে যুক্তরাষ্ট্র-কানাডার যৌথ উদ্যোগের বিষয়টি পুর্নর্বিবেচনার আহ্বান জানিয়েছে কানাডার পর্যটন ও ব্যবসায়িক সংস্থাগুলো।

২০২০ সালের মার্চ মাস থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সীমান্ত অনাবশ্যক ভ্রমণকারীদের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে। এর ফলে দুই দেশের মধ্যে স্থল ও আকাশপথে যাত্রী চলাচল ব্যাপকভাবে কমে গেছে। এ বিধিনিষেধের বড় ধরনের প্রভাব পড়েছে কানাডার পর্যটন খাতে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এয়ারলাইন্সগুলো।

সিবি/এডিবি/