ন্যাভিগেশন মেনু

করোনা মোকাবিলায় ভারতের দিকে হাত বাড়াল ইজরায়েল

করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে বেসামাল ভারত । ক্রমে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। অক্সিজেনের অভাবে হাহাকার চলছে গোটা দেশজুড়ে।

এহেন পরিস্থিতিতে এবার ভারতের পাশে দাঁড়াল ইজরায়েল। শীঘ্রই করোনা মোকাবিলায় জরুরি চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠাতে  চলেছে তারা।

সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, মহামারী মোকাবিলায় ওষুধ ও অক্সিজেন জেনারেটর ও রেসপিরেটর পাঠাতে চলেছে ইজরায়েল। সংবাদ সংস্থাটির প্রকাশিত ছবিতে দেখা যাচ্ছে ইজরায়েলী ত্রাণ সামগ্রীর প্যাকেটের উপর লেখা রয়েছে, ‘ইজরায়েলের জনতার তরফে ভারতের জনগণের জন্য।’

বিশ্লেষকদের মতে, মোদি জমানায় নয়াদিল্লি ও জেরুজালেমের মধ্যে সম্পর্ক অত্যন্ত মজবুত হয়েছে। প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে ভারতের জন্য অস্ত্রের অন্যতম জোগানদাতা হিসেবে উঠে এসেছে ইজরায়েল। অত্যাধুনিক মিসাইল, গাইডেড বোমা থেকে শুরু করে রাইফেল পর্যন্ত ইহুদি দেশটি থেকে আমদানি করা হয়।

শুধু তাই নয়, বাণিজ্যিকভাবেই কাছাকাছি এসেছে দুই দেশ। ফলে ভারতের সংকটের সময় তারা যে পাশে দাড়াবে সেই কথা জানাই ছিল।

অন্যদিকে, সংযুক্ত আরব অমিরশাহী থেকে ২০ মেট্রিক টন লিকুইড অক্সিজেন গুজরাটের মুন্দরা সমুদ্র বন্দরে পৌঁছেছে।

এছাড়া, আমেরিকা থেকে নয়াদিল্লি বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেছে ৫৪৫টি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর। করোনা মোকাবিলার সরঞ্জাম নিয়ে কুয়েত থেকেও জাহাজ রওনা দিয়েছে ভারতের উদ্দেশে। সব মিলিয়ে দেশের এই সংকটে পাশে দাঁড়িয়েছে গোটা বিশ্ব।

করোনা রোগীর চিকিৎসায় বহু ক্ষেত্রেই অন্তরায় হয়ে দাঁড়াচ্ছে মেডিক্যাল অক্সিজেনের ঘাটতি। যা নিয়ে সরব বিরোধীরা। তবে এবার হয়তো দ্রুত এই সমস্যার সমাধান হতে পারে। কারণ এবার নাইট্রোজেন প্লান্টেই অক্সিজেন তৈরি করার পরিকল্পনা করছে মোদি সরকার।

রবিবার সকালেই এক জরুরি বৈঠক ডেকেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেখানে তিনি খোঁজ নেন নাইট্রোজেন প্লান্টগুলি অক্সিজেন প্লান্টে রূপান্তরিত করার কাজ কতদূর।

এখনও পর্যন্ত ১৪টি নাইট্রোজেন প্লান্টকে বেছে নেওয়া হয়েছে। সরকার চাইছে আরও ৩৭টিকে বেছে নেওয়া হোক। এই নিয়ে বিশদে আলোচনা করতে আজ ওই বৈঠক হয়। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্য সচিব থেকে শুরু করে মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন এই বৈঠকে।

এস এস