ন্যাভিগেশন মেনু

আগামী নির্বাচনে লড়তে যাচ্ছেন ট্রাম্প!

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০২৪ সালে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে জয়ী হবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

গত নির্বাচনে তিনিই জয়ী হয়েছেন দাবি করে অভিযোগ তুলেছেন কারচুপির। সমালোচনায় বিদ্ধ করেছেন নিজ দলের সিনেটরদের, যারা তার অভিসংশনের পক্ষ নিয়েছেন।

রবিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের অরল্যান্ডো শহরে কনজারভেটিভ পলিটিক্যাল অ্যাকশন কনফারেন্সে (সিপিএসি) বক্তব্য দেওয়ার সময় ট্রাম্প এসব বিষয় তুলে ধরেন। খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্স‘র।

সাবেক এই প্রেসিডেন্ট হোয়াইট ছেড়েছেন এক মাসের বেশি হলো। সেভাবে আর প্রকাশ্যে দেখা যায়নি তাকে। কিন্তু আবার প্রকাশ্যে এসেই অভিযোগের ঝড় তুললেন ট্রাম্প।

ট্রাম্প বলেন, ‘আপনাদের সহযোগীতায় আমরা আবার হাউজে (হোয়াইট হাউজে) ফিরবো। আমরা সিনেটেও জয়ী হবো এবং বিজয়ী হয়ে একজন রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট হোয়াইট হাউজে ফিরবেন। আমি ভাবছি, কে হবেন সেই ব্যক্তি?’ এরপর ট্রাম্প হেসে বলেন, ‘কে, কে, কে হবেন সেই ব্যক্তি, আমি ভাবছি।’

এরপর ট্রাম্প সেইসব রিপাবলিকানদের ওপর ক্ষোভ উগরে দেন, যারা তাকে অভিশংসিত করার জন্য পক্ষে কাজ করেছেন। তারাই গত ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটলে ভয়াবহ হামলার ইন্ধন যুগিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন।

তিনি এ সময় কয়েকজনের নাম উল্লেখ করেন। এরমধ্যে রয়েছেন সিনেটর মিট রমনি, প্যাট টমি এবং আইন প্রণেতা লিজ সিনে এবং অ্যাডাম কিনজিনজার।

ট্রাম্প এদিনও নির্বাচন নিয়ে মিথ্যা অভিযোগ তোলেন। ৩ নভেম্বরের নির্বাচনে কারচুপি করে বাইডেন ক্ষমতায় এসেছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। বলেন, ‘তারা শুধু হোয়াইট হাইজকে হারিয়েছে, কিন্তু কে জানে, কে জানে এ কথা।’ তৃতীয়বার নির্বাচন করে তাদের হারানোর প্রতিজ্ঞা করেন ট্রাম্প। বাইডেন সীমন্তরক্ষীদের নিয়ন্ত্রণ করেছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

তবে আগামী নির্বাচনে অংশ নিলেও তৃতীয় কোনো রাজনৈতিক দল গঠনের ইচ্ছে তার নেই বলে জানান।

ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা তৃতীয় দল তৈরি করবো না। আমরা রিপাবলিকান। আমরা ঐক্যবদ্ধ আছি এবং আগের চেয়েও এখন বেশি শক্তিশালী। আমার নতুন পরিকল্পনা রয়েছে এবং গত দুই মাসে সে বিষয়ে উপদেষ্টাদের সঙ্গে আলোচনা করেছি।

ক্ষমতা হারানোর পর যুক্তরাষ্ট্রে ব্যাপক সহিংসতা চালান ট্রাম্পের সর্থকরা। এর জেরে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম প্রেসিডেন্ট হিসেবে দুবার অভিশংসনের লজ্জায় পড়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। পার্লামেন্ট ভবনে (ক্যাপিটল হিল) সহিংসতায় উসকানি দেওয়ার অভিযোগে তাকে দ্বিতীয়বারের মতো অভিশংসিত করে দেশটির প্রতিনিধি পরিষদ। ২০১৯ সালেও অভিশংসনের মুখে পড়েছিলেন ট্রাম্প। তবে সেবার রিপাবলিকানশাসিত সিনেট পক্ষে থাকায় ক্ষমতা ছাড়তে হয়নি তাকে।

সিবি/এডিবি